সুখোই – ২৭ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের তৈরি চতুর্থ জেনারেশনের সুপার ম্যনুভারেবল ফাইটার এয়ারক্রাফট । সুখোই – ২৭ এর হেভি আর্মামেন্ট, শক্তিশালী এভিওনিকস যেমন : নেভিগেশন, কমিউনিকেশন, হাই ম্যানুভারিটি এবং অবিশ্বাস্য রকমের গতি একে পৃথিবীর কাছে “দি সোভিয়েত বিষ্ট” হিসাবে পরিচিত করে তোলে।

এই বিমানের কারিশমা দেখে আমেরিকাও তাজ্জব বনে যায় !

আমেরিকা ১৯৬৯ সালে নতুন ফাইটার তৈরির জন্য কঠোর গোপনীয়তার “এফএক্স” নামে একটা প্রোগ্রাম হাতে নেয়।
তার পাল্টা কাউন্টার হিসাবে রাশিয়া PFI এবং LPFI নামে ২টা প্রোগ্রাম শুরু করে। তারই ফল সুখোই – ২৭

এর ডিজাইনের দায়িত্ব দেয়া হয় সোভিয়েত বিমান কোম্পানি সুখোইকে। ১৯৭৭ সালে প্রথম এই বিমান সার্ভিসে আসে তবুও ১০০ ভাগ ক্রুটি সারিয়ে সব কিছু শেষে এই বিমান প্রোডাকশন হয়ে সার্ভিসে আসে ১৯৮৪ তে।
এই বিমানে আছে ২টি শক্তিশালী Lyulka AL-31F turbofans সিরিজ টার্বোফ্যান ইঞ্জিন যা এর সর্বচ্চো গতি ম্যাক ২.৩৫ (২৫০০ কি.মি./ ঘন্টা) পর্যন্ত নিয়ে যায়। এতে আছে শক্তিশালী Phazotron N001 Myech রাডার সিস্টেম, যা ইলেকট্রিক পালস ব্যবহার করে এই বিমান কে ২২০ কিলোমিটার রেঞ্জ এ ৩৬০ ডিগ্রি রাডার সাপোর্ট দেয় সাথে একি সময় ১০ টা টার্গেট লক আর ৪টা টার্গেট শুট করার ক্ষমতা রাখে। এছাড়াও এতে ৮০ কিলোমিটার রেন্জের এ্যাকটিভ ইনফ্রোরেড রাডার ও ছিলো।

সু ২৭ ম্যাক ২ + গতিতে ১১০ ডিগ্রি স্ট্যান্ডআপ ম্যানুভারবল ছিলো যেখানে আলাদা ভাবে মডিফাই করা যেখানে আমেরিকান এফ ১৫ এর ক্ষমতা ছিলো মাত্র ৭০ ডিগ্রি ।
সার্ভিস সিলিং : ৬৩০০০ ফিট

আর্মামেন্ট:
১৫০ রাউন্ড সহ একটা ৩০ এমএম GSh-30-1 cannon
১০ টা হার্ড পয়েন্টে যার মাঝে ফিক্সড ২ টা এয়ার টু এয়ার ( সিরিজ )মিসাইল বাকি ৮ টায় যখন যা লোড করা হয়।
এর বাইরে এই বিমানের ৮০০০ কেজি বোমা নেবার ক্ষমতা আছে !
এই বিমানের প্রায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে ৩২ টার মত বিশ্বরেকর্ড আছে যা এখনো অটুট তাই আমেরিকান বিমান বিজ্ঞানীরা সু ২৭ কে নাম দেয় “দি সোভিয়েত বিষ্ট”।

লেখক – প্রতিক

Advertisements